শরীয়তপুর জেলা পরিবার পরিকল্পনা নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১

শরীয়তপুর জেলা পরিবার পরিকল্পনা নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১ প্রকাশ করা হয়েছে। শরীয়তপুরের নামকরণ করা হয় হাজী শরীয়তুল্লাহ যিনি ছিলেন ফরায়েজি আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাতা এবং ব্রিটিশ রাজত্বের সময় বিশিষ্ট ইসলামী সংস্কারক। এটি ১ মার্চ ১৯৮৪ সালে একটি জেলা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ১৯৭১ সালে পাক বাহিনী তাদের স্থানীয় এজেন্টদের সহযোগিতায় গণহত্যা ও লুণ্ঠন চালায়; তারা জেলার অনেক বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় শরীয়তপুর সদর উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের এবং পাকবাহিনীর মধ্যে বেশ কয়েকটি এনকাউন্টার অনুষ্ঠিত হয়েছিল যাতে পাকসেনা নিহত হয়েছিল।

ভেদরগঞ্জ উপজেলায় পাকসেনাদের সঙ্গে দুটি এনকাউন্টারে এবং এক সম্মুখ যুদ্ধে বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। আহসানুল হক এবং আবদুল ওয়াহাব সহ নয়জন মুক্তিযোদ্ধা ডামুড্যা কলেজের দক্ষিণ পাশে একটি স্থানে পাকসেনাদের সাথে সংঘর্ষে নিহত হয়। সরকারি চাকরির খবর দেখতে পারেন www.bdjobsedu.com থেকে। শরীয়তপুর জেলা পরিবার পরিকল্পনা নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১ দেখে আবেদন করুন।

শরীয়তপুর জেলা পরিবার পরিকল্পনা নিয়োগ ২০২১

  • আবেদন শুরঃ ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • আবেদন শেষঃ ০৫ অক্টোবর ২০২১
  • পদসংখ্যাঃ বিজ্ঞপ্তি দেখুন
  • অনলাইনে আবেদন করুন নিচে থেকে

অনলাইনে আবেদন করুন
আজই আবেদন করুন ধন্যবাদ

জনপ্রিয় চাকরির খবর সমূহ

Shariatpur District Family Planning Office Job Circular 2021

মুক্তিযোদ্ধা ও মুজিব বাহিনী যৌথভাবে উপজেলায় গেরিলা কৌশলে পাকবাহিনীর উপর আক্রমণ চালায়। গোসাইরহাট উপজেলায় পাকসেনাদের সঙ্গে সংঘর্ষে পাঁচজন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। নড়িয়ার মুক্তিযোদ্ধারা নড়িয়া থানায় অভিযান চালিয়ে থানার সকল অস্ত্র ও গোলাবারুদ কেড়ে নেয়। প্রতিশোধ হিসেবে পাকসেনারা আশেপাশের গ্রামগুলোকে তাড়িয়ে দেয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ঝঞ্ঝিরা উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধাদের এবং পাকবাহিনীর মধ্যে বেশ কয়েকটি এনকাউন্টার অনুষ্ঠিত হয় যাতে বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। মুক্তিযুদ্ধ ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে পাকবাহিনী এবং তার সহযোগীরা এই জেলায় ব্যাপক অগ্নিসংযোগ, হত্যা ও ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। কর্নেল শওকত আলী এবং স্টুয়ার্ট মজিবুর রহমান মুক্তিযুদ্ধের সময় সাবেক মাদারীপুর মহকুমার সার্বিক দায়িত্বে ছিলেন।

মে মাসে শরীয়তপুর সদর উপজেলার বেশ কয়েকটি স্থানে মুক্তিযোদ্ধা ও পাকসেনাদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। ভেদারগঞ্জ উপজেলায় পাকসেনাদের সাথে দুটি সংঘর্ষ এবং একটি সম্মুখ যুদ্ধে বিপুল সংখ্যক মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। আহামানুল হক এবং আবদুল ওয়াহাব সহ নয়জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন পাকবাহিনী এবং মুক্তিযোদ্ধাদের মধ্যে দামুদা কলেজের দক্ষিণে সম্মুখ যুদ্ধে। এই উপজেলায় মুজিব বাহিনী গেরিলা পদ্ধতিতে যুদ্ধ করেছিল। মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে পাকবাহিনীর আরেকটি যুদ্ধে গোন্সাইরহাট উপজেলায় ৫ জন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। নড়িয়া উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধারা থানায় হামলা করে এবং অস্ত্র লুট করে এবং পরবর্তীতে পাকসেনারা এলাকায় বাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেয় এবং ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। মুক্তিযুদ্ধের সময় জাজিরা উপজেলায় মুক্তিযোদ্ধা ও পাকসেনাদের মধ্যে বেশ কয়েকটি সংঘর্ষ হয় এবং বেশ কয়েকজন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন।

Leave a Reply

Back to top button
error: লেখা কপি করা যাবেনা !!