রংপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ নিয়োগ ২০২১

রংপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১ প্রকাশিত হয়েছে। ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল ও কলেজ, রংপুর মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, দিনাজপুর এর অধীনে পরিচালিত একটি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। রংপুর ক্যান্টনমেন্টের সূচনা হয় ১৯৭৭ সালে বিগ্রেডিয়ার এম এ লতিফের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন এর মাধ্যমে। রংপুর ক্যান্টনমেন্টের অফিসারদের এবং ঐ এলাকার ছেলেমেয়েদের শিক্ষার সুবিধার্থে প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। রংপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ও সকল প্রকার চাকরির খবর পাবেন এখানে।

রংপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ নিয়োগ ২০২১

  • সময়সীমাঃ ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১
  • পদ সংখ্যাঃ বিজ্ঞপ্তি দেখুন

রংপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজ নিয়োগ ২০২১

জনপ্রিয় চাকরির খবর সমূহ

Rangpur Cantonment Public School And College

এখানে বিদ্যালয় শাখা শুরু হয় ১৯৭৮ সালে, মহাবিদ্যালয় শুরু হয় ১৯৮১ সালে ও ডিগ্রি পর্যায়ের শুরু হয় ১৯৯৫ সালে এবং ইংরেজি মাধ্যমে পড়াশুনা শুরু হয় ১৯৯৩ সালে। ইংরেজি মাধ্যমটি “দি মিলেনিয়াম স্টারস স্কুল অ্যান্ড কলেজ” নামে নামকরিত হয়ে অধ্যক্ষের আধীনে ২০১০ সাল পর্যন্ত এর কার্যক্রম পরিচালনা করে। এরপর এর জন্য আলাদা একজন অধ্যক্ষ নিযুক্ত হন। শিশু শ্রেণী থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষাদান এর মাধ্যমে এটি ১৯৭৮ সালে এর যাত্রা শুরু করে। ১৯৮০ সালে এটি দশম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষাদান শুরু করে ও ১৯৮২ সালে শিক্ষার্থীরা এস এস সি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ শুরু করে।

“দি মিলেনিয়াম স্টারস স্কুল অ্যান্ড কলেজ” টি দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত বিস্তৃত ও ১৯৯৫ সালে এতে ডিগ্রি পর্যায়ের সূচনা হয়। স্কুল, কলেজ শাখাগুলো দিনাজপুর শিক্ষা বোর্ড এর অধীনে এস এস সি ও এইচ এস সি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। ডিগ্রি লেভেল এর পরীক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করে “জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়” এর অধীনে। বিদ্যালয় শাখাটির অবস্থান দিনাজপুর-রংপুর হাইওয়ে রোড এর পাশে ও রংপুর মেডিকেল কলেজ হতে আধা কিলোমিটার দূরে। এটি রংপুরের মধ্যখানে অবস্থিত ও রংপুর ক্যান্টনমেন্ট থেকে কিছুটা দূরে অবস্থিত।

মিশন

সিপিএসসিআর, অর্থাৎ, ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল এবং কলেজ, রংপুর সাশ্রয়ী মূল্যে ফি, বিজ্ঞান, কলা, বাণিজ্য ও কম্পিউটার বিজ্ঞানের মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রদানের মাধ্যমে তরুণ পণ্ডিতদের বুদ্ধিদীপ্ত সৃজনশীল দক্ষতা বৃদ্ধি এবং চ্যানেলাইজ করা। এটি আমাদের সমাজ ও জাতির বৃহত্তর উন্নতির জন্য শিক্ষার্থীদের ধর্মীয়, নৈতিক, আধ্যাত্মিক এবং সামাজিক মূল্যবোধকেও প্ররোচিত করে। এর মধ্যে রয়েছেঃ

  • বাড়িতে, স্কুল এবং সম্প্রদায়ের অবদানের জন্য শিক্ষার্থীদের প্রাপ্তি করা।
  • শিক্ষার্থীদের ব্যক্তিগত সৃজনশীলতা অন্বেষণ করতে উৎসাহিত করা।
  • শিক্ষার্থীদের লাভজনক অনুসরণে তাদের জড়িত করার অভ্যাস গড়ে তোলা।
  • যোগাযোগের দক্ষতা প্রচার করা।
  • শিক্ষার্থীদের এবং বাংলাদেশের আদর্শ ও সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ বোঝার জন্য।
  • নৈতিক উচ্চতা বজায় রাখার জন্য ধর্মীয় মূল্যবোধ এবং শিক্ষা।
    সৎ ও দেশপ্রেমিক নাগরিক করা।
  • সরল জীবনযাপন এবং উচ্চ চিন্তার ধারণা উৎসাহিত করা

Leave a Reply

Back to top button
error: লেখা কপি করা যাবেনা !!