সিলেট বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১

সিলেট বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১ প্রকাশিত হয়েছে। সিলেট বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় এর নিম্নে উল্লেখিত পদে সরাসরি নিয়োগ এর জন্য বিভাগের স্থায়ী বাসিন্দাদের নিকট থেকে নির্ধারিত ফরমে দরখাস্ত আহবান করা হয়েছে। সিলেট বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ও সকল চাকরির খবর পাবেন এখানেই।

সিলেট বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় নিয়োগ

  • আবদেন শুরুঃ ২১ মার্চ ২০২১
  • আবেদন শেষঃ ০৯ এপ্রিল ২০২১
  • পদ সংখ্যাঃ বিজ্ঞপ্তি দেখুন
  • অনলাইনে আবেদন করুন নিচ থেকে

বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১

অনলাইনে আবেদন করুন
২১ তারিখ সকাল ১০.০০ হইতে

জনপ্রিয় চাকরির খবর সমূহ

Sylhet Division Job Circular 2021

উত্তরে ভারতের খাসিয়া, জৈন্তিয়া পাহাড় দক্ষিণে মৌলভীবাজার জেলা, পূর্বে ভারতের কাছাড় ও করিমগঞ্জ জেলা (ভারতের আসাম রাজ্য) ও পশ্চিমে সুনামগঞ্জ এবং হবিগঞ্জ জেলা। আয়তন : ৩,৪৫২.০৭ বর্গ কি.মি বা ১৩৩২.০০ বর্গমাইল। জনসংখ্যা: ৩৫,৬৭,১৩৮ জন (২০১১)(পুরুষ ১৭,৯৩,৮৫৮ জন এবং মহিলা ১৭,৭৩,২৮০ জন)। উপজাতি/ক্ষুদ্র জাতিসত্তা/নৃ-গোষ্ঠী : মোট ১৭,৩৬৩ জন (আদম শুমারী ২০০১) (প্রধানত মণিপুরি, পাত্র, খাসিয়া, চাকমা, ত্রিপুরা, সাঁওতাল)।

বার্ষিক গড় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা : ৩৩.২০ সে., সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৩.৬০ সে.। বার্ষিক মোট বৃষ্টিপাত : ৩৩৩৪ মিমি.। সিলেটের প্রধান ও দীর্ঘতম নদী : সুরমা (৩৫০ কি.মি.), অপর বৃহৎ নদী হলো কুশিয়ারা, এছাড়াও রয়েছে সারি, পিয়াইন। সিলেটের হাওর-বিল : ছোট বড় মিলিয়ে মোট ৮২টি। সিলেটের ফরেস্ট : সর্বমোট রিজার্ভ ফরেস্ট ২৩৬.৪২ বর্গ কি.মি.। জেলার উওর-পূর্ব কোণে ভারতের খাসিয়া ও জৈমিত্ময়া পাহাড়ের অংশবিশেষ বিদ্যমান সিলেটে বেশ কিছু ছোট ছোট পাহাড় ও টিলা রয়েছে, যার মধ্যে জৈমত্মাপুর টিলা (৫৪ মিটার), সারি টিলা (৯২ মি), লালাখাল টিলা (১৩৫ মি), ঢাকা দক্ষিণের টিলা শ্রেণী (৭৭.৭ মি) উল্লেখযোগ্য। জনসংখ্যার ঘনত্ব : ৯৯৫ জন প্রতি বর্গ কি.মি.(২০১১)

দর্শনীয় স্থান

জালালী কবুতর ও নিজাম উদ্দিন আউলিয়াহযরত: শাহজালাল (র.) এর আধ্যাত্নিক শক্তির পরিচয় পেয়ে হযরত নিজামুদ্দিন আউলিয়া(র.) তাঁকে সাদর এ গ্রহণ করেন। প্রীতির নিদর্শনস্বরূপ তিনি তাঁকে এক জোড়া সুরমা রঙের কবুতর বা জালালী কবুতর উপহার দেন ও সিলেট ও আশপাশ এর অঞ্চলে বর্তমানে যে সুরমা রঙের কবুতর দেখা যায় তা ওই কপোত যুগলের বংশধর ও জালালী কবুতর নামে খ্যাত। সিলেটে জাতিধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে কেউই এ কবুতর বধ করে না এবং খায় না। বরং অধিবাসীরা এদের খাদ্য ও আশ্রয় দিয়ে থাকে। শাহজালালের (র.) মাজার এলাকায় প্রতিদিন ঝাঁকে ঝাঁকে কবুতর উড়তে দেখা যায়। মাজার কর্তৃপক্ষ এসব কবুতরের খাবার সরবরাহ করে থাকেন।

Leave a Reply

Back to top button
error: লেখা কপি করা যাবেনা !!