বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন নিয়োগ ২০২১

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি ২০২১ প্রকাশিত হয়েছে। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন বাংলাদেশ এর একটি মূলধন বাজার নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা। এটি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জ এর শেয়ার মূল্যসমূহ গতিপ্রকৃতি নিয়মিত পর্যবেক্ষণ এবং পরীক্ষা করে। এ কমিশন বাংলাদেশ এর অর্থ মন্ত্রণালয়ের অধীনস্ত একটি সংগঠন। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন ১৯৯৩ সালে ৮ জুন সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন আইন ১৯৯৩ ক্ষমতাবলে প্রতিষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেখে আবেদন করুন।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন নিয়োগ ২০২১

  • সময়সীমাঃ ২২ নভেম্বর ২০২১
  • পদসংখ্যাঃ বিজ্ঞপ্তি দেখুন

আগ্রহী প্রার্থীদের ০৪ কপি পাসপাের্ট সাইজের ছবি, শিক্ষাগত ও অভিজ্ঞতা সনদের সত্যায়িত কপিসহ আবেদনপত্র উক্ত তারিখের মধ্যে মহাপরিচালক, বিএএসএম, জীবন বীমা টাওয়ার (১৫তম তলা), ১০ দিলকুশা বাণিজ্যিক এলাকা, ঢাকা-১০০০ বরাবর প্রেরণ করতে হবে। চাকুরীতে নিয়ােজিত প্রার্থীদের যথাযথ কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। শুধুমাত্র সংক্ষিপ্ত তালিকাভুক্ত প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষার জন্য ডাকা হবে। মৌখিক পরীক্ষার জন্য কোনরূপ টিএ/ডিএ প্রদান করা হবে না।

  • সময়সীমাঃ ৩০ এপ্রিল ২০২১
  • পদ সংখ্যাঃ বিজ্ঞপ্তি দেখুন
  • আবেদন ফরম ডাউনলোড করুন নিচে থেকে

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন নিয়োগ ২০২১

আবেদন ফরম ডাউনলোড করুন

জনপ্রিয় চাকরির খবর সমূহ

Bangladesh Securities and Exchange Commission Job Circular 2021

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ১৯৯৩ সালের ৮ জুন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন আইন ১৯৯৩ এর বিধান অনুসারে দেশের মূলধন বাজারের নিয়ন্ত্রক হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। কমিশনের উদ্দেশ্য সিকিওরিটির বিনিয়োগকারীদের স্বার্থ রক্ষা করা , সিকিওরিটিজ বাজারের বিকাশ এবং এর সাথে সংযুক্ত বিষয় বা এর সাথে আনুষঙ্গিক বিষয়গুলির জন্য নিয়ম তৈরি করুন। কমিশন চেয়ারম্যান এবং চার কমিশনারকে নিয়ে গঠিত যারা সরকার কর্তৃক পূর্ণ সময়ের জন্য নিযুক্ত হন। চেয়ারম্যান কমিশনের প্রধান নির্বাহী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। কমিশন একটি বিধিবদ্ধ সংস্থা এবং অর্থ মন্ত্রকের সাথে সংযুক্ত।

বিএসইসি ২২ ডিসেম্বর ২০১৩ সাল থেকে আন্তর্জাতিক সিকিউরিটিজ কমিশনসের (আইওএসসিও) একটি ‘এ’ বিভাগের সদস্য। বিশ্বব্যাপী পুঁজিবাজারটি শিল্প ও অবকাঠামোগতদের দীর্ঘমেয়াদী অর্থ সরবরাহের মাধ্যমে অর্থনীতিতে অবদান রাখে যা তাদের বৃদ্ধির উপযোগী। এ জাতীয় অর্থায়ন শিল্পায়ন, উৎপাদন বৃদ্ধিতে, কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি এবং বৈদেশিক মুদ্রা উপার্জনকে সহায়তা করে ates বিশ্বজুড়ে পুঁজিবাজার ঝুঁকির সাথে জড়িত, বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। এই বাজারে বিনিয়োগকারীদের কীভাবে ঝুঁকি-সমন্বিত রিটার্ন করতে হয় তা শিখতে হবে।

কোভিড -১৯ বিশ্বজুড়ে শেয়ার বাজারের উপর প্রভাব ফেলেছে, তবে বাজারের চেতনা শিল্প উৎপাদন এবং ব্যবহারের ক্ষেত্রে স্বাভাবিকতার সাথে তার অবস্থান ফিরিয়ে আনবে। তবে বিনিয়োগকারীদের ধৈর্য ধরে রাখতে হবে এবং অন্যদের মধ্যে অর্থনীতির উত্থান-পতন বোঝা উচিত। সরকারের সহায়তার পাশাপাশি, বাংলাদেশ সিকিওরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন যে কোনও পরিস্থিতিতে বাজারের সুবিধার্থে অব্যাহত রাখতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমি আশা করি যে শিল্প ও অবকাঠামোগত আর্থিক সংস্থাগুলির আর্থিক প্রয়োজন মেটাতে বাংলাদেশের মূলধন বাজার বাড়তে থাকবে এবং এইভাবে সুশাসনের সমস্ত নীতিমালা নিশ্চিত করে আগত বছরগুলিতে অর্থনীতিতে আরও বেশি অবদান রাখবে।

Leave a Reply

Back to top button
error: লেখা কপি করা যাবেনা !!